প্রশ্নোত্তর

এই পেজে আস্তিকতা-নাস্তিকতা সম্পর্কিত প্রাসঙ্গিক বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেয়া হবে। আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থাকে, তাহলে এখানে প্রশ্নটি করে ফেলুন…

১০টি মন্তব্য

    1. আত্মা কী, তা আমরা জানি না। শুধুমাত্র এটি জানি, আত্মা হচ্ছে আল্লাহর হুকুম। প্রায়োগিক দিক থেকে এটি হচ্ছে আমাদের জীবনী শক্তি বা ভাইটাল ফোর্স। ‘একটা কিছু’ যা থাকার কারণে আমাদের দেহ সামগ্রিকভাবে সজীব ও সচেতন থাকে।

    2. আত্মার সাথে সামগ্রিক সত্তার সম্পর্ক। হৃদপিন্ডের সম্পর্ক ঠিক আমার মনে হচ্ছে না। এই দৃষ্টিতে আপনার দ্বিতীয় ধারণাটা সঠিক।

    1. মানুষ যদি জীবন ও জগতের মৌলিক বিষয়গুলো নিয়ে স্বাধীনভাবে চিন্তা ভাবনা করে, অন্ধ বিশ্বাস এর পরিবর্তে যুক্তির ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়, তাহলে তিনি অলরেডি একজন দার্শনিক। দার্শনিক হিসেবে তিনি সমাজে প্রতিষ্ঠিত পরিচিত হন বা না হন, তাতে কিছু আসে যায় না।

  1. আসসালামু’আলাইকুম। আমার মাথায় একটি প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। এবং সঠিক যুক্তি না পাওয়ার কারণে তা আমি মন থেকে ঝেরে ফেলতে পারছি না। প্রশ্নটি হলো। যেমন এই সৃষ্টি জগতের জন্য একজন সৃষ্টিকর্তা আছেন। আর তিনি হলেন আল্লাহ্। ঠিক তেমনি ভাবে এই সৃষ্টি জগতের বাহিরে অন্য কোন সৃষ্টি জগত থাকতে পারে কি না? যেখানে অন্য এক জন সৃষ্টিকর্তার কতৃত্ব বিদ্যমান?প্রশ্নটি আমার মনে এসেছিল এজন্যে যে, যেহেতু একজন অসীম সত্তা সব সময় থাকতে পারেন। তাহলে অন্য কেউ থাকার কি পসিবেলিটি নেই? যার রাজত্ব আলাদা।

    1. অসীম কথাটা এমন যে সেটা কখনো একাধিক হতে পারে না। সেজন্য অসীম সত্তা একজনই হবেন। একজন অসীম সত্তার থাকা সত্ত্বেও আরেকজন যদি তার বাইরে স্বাধীন কেউ থাকে, তাহলে প্রথমজন অসীম শব্দটার অর্থগত সংজ্ঞা অনুসারে আর অসীম হিসেবে বিবেচিত হবেন না। বরং তিনি হবেন সীমিত। সেটা যত বড়ই হোক না কেন।

      বৃহত্তম সংখ্যার বাইরে যেমন করে কোনো সংখ্যা থাকতে পারে না, বৃহত্তম বৃত্তের বাইরে যেমন করে কোনো বিন্দু থাকতে পারে না, তেমনি করে অসীম সত্তার বাইরে অন্য কোনো অসীম সত্তা থাকতে পারে না। ভাষা ও গণিত সম্পর্কে আমাদের যুক্তি ও জ্ঞান আমাদেরকে এটাই তো বলে।

    1. সুফিবাদ নিয়ে আমার তেমন ধারনা নাই। এই বিষয়টা আপনি আমার চেয়ে ভালো বুঝতে ও বলতে পারবেন। মন্তব্য করার জন্য ধন্যবাদ।

  2. আমার জন্ম হয়েছে একটি মুসলিম পরিবারে। সেই ধারাবাহিকতায় আমি ইসলাম ধর্মের যাবতীয় ধর্মিয় বিষয়াবলি আমল করার চেষ্টা করি। কিন্তু আমার এই ইসলাম মেনে চলা শুধুমাত্র এজন্যই যে আমার বাবা ইসলাম ধর্মে বিশ্বাস করেন তাই আমিও ইসলাম ধর্মে বিশ্বাস করি।
    কিন্তু আজকাল আমার কাছে মনে হচ্ছে এই একি উপায়ে বিভিন্ন ধর্মের মানুষ তাদের নিজ নিজ ধর্মের অনুসরন করে থাকে এবং শুধু মাত্র বিশ্বাসের জায়গা থেকে নিজের ধর্মকে সত্য বলে দাবি করে। তাই আমার আর তাদের বিশ্বাসের মাঝে কোন পার্থক্য নেই। এবং আমার কাছে কোন যৌক্তিক কারনও নেই নিজের বিশ্বাসকে সত্য বলে দাবি করার।
    তাই আমি আজকাল নিরপেক্ষ জায়গা থেকে ইসলাম নিয়ে পড়াশোনা করছি, যেহেতু আমি সৃষ্টিকর্তায় বিশ্বাস করি ( যিনি এই সৃষ্টিজগতের পেছনের কারন,সে যদি আল্লাহ হয় তাহলে আল্লাহই ) তাই আমি ইসলাম ধর্ম সত্যিকার অর্থেই সৃষ্টিকর্তার বা আল্লাহর মনোনিত কিনা তা নিয়ে পড়াশোনা করছি।
    এই মুহুর্তে সত্য খুঁজতে খুঁজতে যদি আমার মৃত্যু হয় তাহলে আমার মৃত্যুটা ইসলামিক সংজ্ঞায় কেমন অবস্থায় হবে? মুসলিম নাকি অমুসলিম?
    যদি অমুসলিম হিসেবে হয়ে থাকে তাহলে এই মুহুর্তে আমার কি করা উচিত? নিরপেক্ষ জায়গা থেকে ইসলামকে যাচাই করে যাওয়া নাকি অন্ধ ভাবেই নিজের বিবেককে দমিয়ে রেখে ইসলাম ধর্মে বিশ্বাস করে ( মনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে ) যাওয়া।

    আমার বর্তমান অবস্থার কথা মাথায় রেখে আমার জন্য উপকারে আসতে পারে এমন ধরনের কিছু বই সাজেস্ট করলে খুশি হবো।
    এছাড়াও ব্যাক্তিগত ভাবে আমি চাইব আপনি আমাকে উদ্দেশ্য করে আমার অবস্থা বিচার করে কিছু উপকারি উপদেশ দিবেন যা আমার জন্য কল্যানকর এবং সহযোগী হবে। ধন্যবাদ স্যার। ভালোবাসা।

আপনার মন্তব্য/প্রশ্ন লিখুন

ইমেইল অ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত ঘরগুলো পূরণ করা আবশ্যক।

*